আধুনিক নারী ইতিহাসচর্চার গুরুত্ব

আধুনিক নারী ইতিহাসচর্চার গুরুত্ব : মাধ্যমিক ইতিহাস

এক সময়ে ইতিহাসচর্চায় নারীর ইতিহাস – কে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে চর্চা করা হত না। আধুনিক কালে বহু শাখাপ্রশাখায় ইতিহাস চর্চা ছড়িয়ে পড়েছে। এর মধ্যে যে সব ক্ষেত্রে নারী ইতিহাস -চর্চার গুরুত্ব রয়েছে, সেগুলি হল—

[i] সামাজিক সাম্য প্রতিষ্ঠায়: নারীরা পিছিয়ে থাকলে গোটা সমাজই পিছিয়ে পড়ে। এজন্য পুরুষ ও নারীর মধ্যে সামাজিক সাম্য প্রতিষ্ঠিত হওয়া দরকার। নারীর ইতিহাসচর্চা এবিষয়ে আমাদের সচেতন করে।

[ii] নারীসমাজের অবস্থা নিরুপণে: এক সময়ে সমাজে নারীরা নানা অবহেলার শিকার ছিল। দীর্ঘ সময়ে নানা ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে আজ তাদের অবস্থার যথেষ্ট অগ্রগতি হয়েছে। এই অগ্রগতির বিবরণ নারী ইতিহাস থেকে জানা যায়।

[iii] নির্যাতন: নারীরা পারিবারিক ও সামাজিক জীবনে নানা অত্যাচার ও নির্যাতনের শিকার। বধূ নির্যাতন, পণপ্রথা,
বাল্যবিবাহ, যৌন নির্যাতন, অশিক্ষা প্রভৃতির শিকার হয়ে চলেছে নারীরা। নারী ইতিহাস থেকে এসব বিষয়ে জানা যায়।

[iv] আন্দোলনে নারীর ভূমিকা নিরূপণে: আধুনিক যুগে নারীরা বিভিন্ন রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক আন্দোলনে
সক্রিয়ভাবে অংশ নিচ্ছে। নারীর ইতিহাস চর্চার ফলে এবিষয়ে আমরা বিস্তারিত জানতে পারছি।

[v] প্রগতি: নারীরা পুরষের মতোই শিক্ষা, সংস্কৃতি, খেলাধুলা, রাজনীতি, ধর্ম প্রভৃতি বিভিন্ন ক্ষেত্রে নিজ নিজ অবদানের
স্বাক্ষর রাখছে। এসব বিষয়ে নারী ইতিহাসচর্চা থেকে জানা যায়।

উপসংহার: মানবসমাজের ‘অর্ধেক আকাশ’ নারীরা বিশেষভাবে ইতিহাসচর্চার অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় সাম্প্রতিককালের ইতিহাসচর্চা পূর্ণতা পেয়েছে। দীর্ঘদিনের শোষণ, বঞ্চনা, লড়াই ও সংগ্রামের মধ্য দিয়ে ‘মেয়ে মানুষ’-এর ‘মানুষ’ হয়ে ওঠার কাহিনি আজ নারী ইতিহাসচর্চা থেকে জানা সম্ভব হচ্ছে।

Welcome Visitor

Rlearn Education
error: Content is protected !!