ভারতে বামপন্থী ভাবধারা প্রসারে মানবেন্দ্রনাথ রায়ের ভূমিকা | মাধ্যমিক ইতিহাস

ভূমিকা : বিশ শতকের দ্বিতীয় দশক থেকে ভারতে বামপন্থী ভাবধারা জনপ্রিয় হতে থাকে। এই সময় ভারতে বামপন্থী ভাবধারা ও আন্দোলনের প্রসারের ক্ষেত্রে সর্বাধিক অগ্রগণ্য হলেন মানবেন্দ্রনাথ রায় (১৮৮৭-১৯৫৪ খ্রি.) বা এম এন রায় (আসল নাম ছিল নরেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য)।

[1] বৈপ্লবিক কাজ: নরেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য সি মার্টিন, মানবেন্দ্রনাথ রায়, হরি সিং, ড. মাহমুদ, সি. হোয়াইট, মি. ব্যানার্জি প্রভৃতি ছদ্মনাম ব্যবহার করে বৈপ্লবিক কাজকর্ম চালান। বিপ্লবী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে তিনি ‘হাওড়া-শিবপুর ষড়যন্ত্র মামলা’য় (১৯১০ খ্রি.) অভিযুক্ত হয়ে ৪ বছর কারাবাসে কাটান। মুক্তিলাভের পর তিনি ১৯১৫ খ্রিস্টাব্দে জার্মানিতে গিয়ে বার্লিনে ‘ভারতীয় বিপ্লবী কমিটি’ গঠন করেন।

[2] কমিউনিস্ট পার্টি প্রতিষ্ঠা: মানবেন্দ্রনাথ লেনিনের আমন্ত্রণে ১৯২০ খ্রিস্টাব্দে রাশিয়ায় যান এবং মস্কোয় অনুষ্ঠিত কমিউনিস্ট আন্তর্জাতিকের দ্বিতীয় সম্মেলনে যোগ দেন। এরপর তিনি অবনী মুখার্জি, মহম্মদ আলি, মহম্মদ সাফিক প্রমুখের সহযোগিতায় রাশিয়ার তাসখন্দে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (১৭ অক্টোবর, ১৯২০ খ্রি.) প্রতিষ্ঠা করেন।

[3] পত্রিকা: মানবেন্দ্রনাথ ১৯২৩ খ্রিস্টাব্দে বার্লিন থেকে ‘ভ্যানগার্ড অব ইন্ডিয়ান ইনডিপেন্ডেন্স’ নামে একটি পাক্ষিক পত্রিকা প্রকাশ করে তা ডাকযোগে ভারতের নানা অঞ্চলে পাঠাতে থাকেন। পত্রিকাটির নাম কয়েকবার পরিবর্তন করলেও ব্রিটিশ সরকার বারবার পত্রিকাটি নিষিদ্ধ করে।

[4] ভাবধারা প্রচার: মানবেন্দ্রনাথের অনুপ্রেরণায় বিভিন্ন কমিউনিস্ট নেতা ভারতের সাধারণ মানুষের মধ্যে কমিউনিস্ট ভাবধারা প্রচারের কাজে নেমে পড়েন। তাঁর প্রেরণায় মুজাফফর আহমেদের নেতৃত্বে কলকাতায় এবং এস এ ডাঙ্গের নেতৃত্বে পশ্চিম ভারতে কমিউনিস্ট আদর্শ প্রচারিত হয়।

[5] কংগ্রেসে যোগদান: মানবেন্দ্রনাথ ১৯৩০ খ্রিস্টাব্দে ভারতে ফিরে এলে সরকার তাঁকে গ্রেফতার করে। তিনি ৬ বছর কারাবাসের পর মুক্তি লাভ করেন।মুক্তিলাভের পর কংগ্রেসের অভ্যন্তরে বামপন্থী ভাবধারার প্রসার ঘটানোর উদ্দেশ্যে তিনি কংগ্রেসে যোগ দেন এবং কংগ্রেসের অভ্যন্তরে লিগ অব র‍্যাডিক্যাল কংগ্রেসমেন (১৯৩৭ খ্রিস্টাব্দে) প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি কংগ্রেসে সুভাষচন্দ্র বসুকে সভাপতি পদে সমর্থন জানান |

[6] র‍্যাডিক্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি গঠন: কংগ্রেসের অভ্যন্তরে বামপন্থী ভাবধারা প্রসারের বিশেষ সম্ভাবনা না থাকায় মানবেন্দ্রনাথ কংগ্রেস থেকে বেরিয়ে এসে (১৯৪০ খ্রি.) ‘র‍্যাডিক্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি’ গঠন করেন।

উপসংহার: মানবেন্দ্রনাথ রায় আমৃত্যু বামপন্থী ভাবধারা ও আন্দোলনের প্রসারে নিরলস লড়াই চালিয়ে যান। তাঁর লেখা কয়েকটি উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ হল ‘ইন্ডিয়া ইন ট্রানজিশন’, ‘ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অবক্ষয় ও পতন’, ‘ইসলামের ঐতিহাসিক ভূমিকা’, ‘বিজ্ঞান ও কুসংস্কার’, ‘নব মানবতাবাদ’ একটি ইস্তেহার’ প্রভৃতি। ১৯৫৪ হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হয়ে দেরাদুনে মানবেন্দ্রনাথ রায়ের মৃত্যু হয়। ‘অমৃতবাজার পত্রিকা’ তাঁকে ‘সারা বিশ্বে বিচরণকারী নিঃসঙ্গ সিংহ’ বলে অভিহিত করেছে।

Welcome Visitor

Rlearn Education
error: Content is protected !!