পরীক্ষাগার ও রাসায়নিক শিল্পে অজৈব রসায়ন

মাধ্যমিক ভৌতবিজ্ঞান মডেল প্রশ্ন

সঠিক উত্তর নির্বাচন করো। (MCQ)

1. নেসলার বিকারকের সঙ্গে বিক্রিয়া করে বাদামি বর্ণের অধঃক্ষেপ উৎপন্ন করে-
a) NH3 b) HCl c) HNO3 d) NaOH

উত্তর : নেসলার বিকারকের সঙ্গে বিক্রিয়া করে বাদামি বর্ণের অধঃক্ষেপ উৎপন্ন করে- c) NH3

2. প্রদত্ত কোন্‌টি আর্দ্র অ্যামোনিয়াকে শুষ্ক করতে ব্যবহৃত হয়?[MP-17]
a) গাঢ় H2SO4 b) P2O5 c) CaO d) CaCl2

উত্তর : c) CaO আর্দ্র অ্যামোনিয়াকে শুষ্ক করতে ব্যবহৃত হয়।

3. ওলিয়ামের সংকেত-
a) H2SO4 b) H2S2O7 c) H2SO3 d) FeS

উত্তর : ওলিয়ামের সংকেত- b) H2S2O7.

4. চিপস্‌-এর প্যাকেটে কোন্‌ গ্যাস ভরা থাকে-
a) O2 b) H2 c) N2 d) CO2

উত্তর : চিপস্‌-এর প্যাকেটে কোন্‌ গ্যাস ভরা থাকে-c) N2.

5. একটি ঝাঁঝালো গন্ধের গ্যাসের সঙ্গে গ্যাসীয় হাইড্রোজেন ক্লোরাইডের বিক্রিয়ায় একটি কঠিন পদার্থের সাদা ধোঁয়া উৎপন্ন হয়। ঝাঁঝালো গ্যাসটি হল-
a) CO2 b) H2S c) NH3 d) Cl2

উত্তর : একটি ঝাঁঝালো গন্ধের গ্যাসের সঙ্গে গ্যাসীয় হাইড্রোজেন ক্লোরাইডের বিক্রিয়ায় একটি কঠিন পদার্থের সাদা ধোঁয়া উৎপন্ন হয়। ঝাঁঝালো গ্যাসটি হল-c) NH3.

6. CuSO4 দ্রবণে H2S গ্যাস চালনা করলে কোন্‌ বর্ণের অধঃক্ষেপ পড়ে?
a) সাদা b) কালো c) সবুজ d) হলুদ।

উত্তর : CuSO4 দ্রবণে H2S গ্যাস চালনা করলে b) কালো বর্ণের অধঃক্ষেপ পড়ে। [কালো অধঃক্ষেপ কিউপ্রিক সালফাইড এর Cus.]

7. ‘অয়েল অব ভিট্রিয়াল’ নামে পরিচিত-
a) HCl b) H2SO4 c) HNO3 d) NH3

উত্তর : ‘অয়েল অব ভিট্রিয়াল’ নামে পরিচিত- b) H2SO4.

8. চোখের কর্নিয়া সংরক্ষণে ব্যবহৃত হয়-
a) NO b) H2S c) N2 d) NO2

উত্তর : চোখের কর্নিয়া সংরক্ষণে ব্যবহৃত হয়- c) N2.

9. কিপ্‌স যন্ত্রে প্রস্তুত করা যায়-
a) H2S b) NH3 c) H2 d) HCl

উত্তর : কিপ্‌স যন্ত্রে প্রস্তুত করা যায়-a) H2S.

10. অ্যামোনিয়া থেকে উৎপন্ন জৈব সার হল-
a) CH4 b) (NH4)2SO4 c) CO(NH2)2 d) NH4OH

উত্তর : অ্যামোনিয়া থেকে উৎপন্ন জৈব সার হল- c) CO(NH2)2.

পরীক্ষাগার ও রাসায়নিক শিল্পে অজৈব রসায়ন

একটি বাক্যে উত্তর দাও। (VSAQ)

1. রুপোর টাকা কোন গ্যাসের সংস্পর্শে এসে কালো হয়ে যায়?
উত্তর: রুপোর টাকা হাইড্রোজেন সালফাইড গ্যাসের সংস্পর্শে এসে কালো হয়ে যায়।

2. পরীক্ষাগারে নাইট্রোজেন প্রস্তুতিতে অ্যামোনিয়াম ক্লোরাইডের জলীয় দ্রবণের সঙ্গে অপর কোন যৌগের জলীয় দ্রবণ মিশ্রিত করে উত্তপ্ত করা হয়?
উত্তর: নাইট্রোজেনের পরীক্ষাগারে প্রস্তুতিতে অ্যামোনিয়াম ক্লোরাইডের জলীয় দ্রবণের সঙ্গে সোডিয়াম নাইট্রাইট (NaNO2) জলীয় দ্রবণ মিশ্রিত করে উত্তপ্ত করা হয়।

3. অ্যালুমিনিয়াম ক্লোরাইডের জলীয় দ্রবণে অ্যামোনিয়ার জলীয় দ্রবণ যোগ করলে যে অধঃক্ষেপ পড়ে তার বর্ণ ও প্রকৃতি কী?
উত্তর: অ্যালুমিনিয়াম ক্লোরাইডের জলীয় দ্রবণে অ্যামোনিয়ার জলীয় দ্রবণ যোগ করলে সাদা জেলির মত অধঃক্ষেপ পড়ে।

4. রসায়নাগারে লবণের ধাতবমূলক শনাক্তকরণে কোন গ্যাসটির প্রয়োজন?
উত্তর: রসায়নাগারে লবণের ধাতবমূলক শনাক্তকরণে হাইড্রোজেন সালফাইড (H2S) গ্যাসটির প্রয়োজন হয়।

5. N2 এর সঙ্গে জ্বলন্ত Mg ফিতার বিক্রিয়ায় উৎপন্ন সাদা পাউডারের মতো পদার্থটির নাম ও সংকেত লেখো।
উত্তর : N2 এর সঙ্গে জ্বলন্ত Mg ফিতার বিক্রিয়ায় উৎপন্ন সাদা পাউডারের মতো ম্যাগনেশিয়াম নাইট্রেট (Mg3N2) তৈরি হয়।

6. কপার সালফেটের জলীয় দ্রবনে অতিরিক্ত পরিমান জলীয় অ্যামোনিয়া যোগ করলে উৎপন্ন দ্রবনের রং কী হবে ? [MP-18]
উঃ- নীল ।

7. অ্যালুমিনিয়াম ক্লোরাইডের জলীয় দ্রবনে অ্যামোনিয়ার জলীয় দ্রবন যোগ করলে যে অধঃক্ষেপ পড়ে তার সংকেত লেখো। [MP-18]
উঃ- অ্যালুমিনিয়াম হাইড্রক্সাইড, Al(OH)3 সাদা রঙের জেলির মতো অধঃক্ষেপ।

8. তরল অ্যামোনিয়ার একটি ব্যবহার লেখো। [MP-18]
উঃ- উচ্চ বাষ্পীভবনের লীনতাপের কারনে তরল অ্যামোনিয়া হিমায়করূপে বরফ উৎপাদন ও কোল্ড স্টোরেজে ব্যবহৃত হয়।

9. নাইট্রোজেনের পরীক্ষাগার প্রস্তুতিতে অ্যামোনিয়াম ক্লোরাইডের সঙ্গে অপর কোন জলীয় দ্রবন মিশ্রিত করে উত্তপ্ত করা হয় ? [MP-18]
উঃ- সোডিয়াম নাইট্রাইট (NaNO2) ।

10. ইউরিয়া প্রস্তুতির প্রারম্ভিক দ্রাব্যগুলি কী কী ? [MP-17,19]
উঃ- তরল অ্যামোনিয়া ও তরল কার্বন- ডাই-অক্সাইড।

11. লেড নাইট্রটের জলীয় দ্রবনে H2S গ্যাস চালনা করলে যে কালো রঙের অধঃক্ষেপ পড়ে তার সংকেত লেখো। [MP-17]
উঃ- লেড সালফাইড (PbS) ।

12. আম্লিক পটাশিয়াম ডাইক্রোমেটের জলীয় দ্রবনে H2S গ্যাস চালনা করলে বর্ণের কী পরিবর্তন হবে ? [MP-17]
উঃ- সবুজ রঙের ক্রোমিক সালফেট এবং হলুদ রঙের সালফার অধঃক্ষিপ্ত হওয়ার কারনে দ্রবন ঘোলাটে সবুজ হয়।

13. সিলভার নাইট্রটের জলীয় দ্রবনে H2S গ্যাস চালনা করলে যে কালো রঙের অধঃক্ষেপ পড়ে তার সংকেত লেখো। [MP-19]
উঃ- বর্ণহীন সিলভার নাইট্রটের জলীয় দ্রবনে H2S গ্যাস চালনা করলে সিলভার সালফাইড (Ag2S) এর কালো রঙের অধঃক্ষেপ পড়ে ।

14. উচ্চ উষ্ণতায় ম্যাগনেশিয়াম ধাতুর সঙ্গে নাইট্রোজেনের বিক্রিয়ায় যে যৌগ উৎপন্ন হয় তার নাম লেখো। [MP-19]
উঃ- অ্যামোনিয়া।

15.ধূমায়মান সালফিউরিক অ্যাসিড কী ?
উঃ- স্পর্শ পদ্ধতিতে উৎপন্ন সালফার ট্রাই অক্সাইড 98% সালফিউরিক অ্যাসিডে শোষিত করে ওলিয়াম বা পাইরো সালফিউরিক অ্যাসিড প্রস্তুত করা হয়, একেই ধূমায়মান সালফিউরিক অ্যাসিড বলে।

16. লাইকার অ্যামোনিয়া কাকে বলে ?
উঃ- অ্যামোনিয়ার সম্পৃক্ত জলীয় দ্রবণকে লাইকার অ্যামোনিয়ার বলে ।

17. H2S গ্যাসকে কোন নিরুদক দ্বারা শুষ্ক করা হয় ?
উঃ- ফসফরাস পেন্টা অক্সাইড (P2O5)।

18. ওলিয়াম কী ?
উঃ- পাইরো সালফিউরিক অ্যাসিডকে (H2S2O7) ওলিয়াম বলে ।

19. স্পর্শ পদ্ধতিতে ব্যবহৃত অনুঘটকটি কী ?
উঃ- ভ্যানাডিয়াম পেন্টাক্সাইড (V2O5)।

20. একটি গ্যাস ভরতি জারে হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড সিক্ত একটি কাচদণ্ড প্রবেশ করানো হল। একটি সাদা ধোঁয়ার সৃষ্টি হল। জারের গ্যাসটি কী? সাদা ধোঁয়া কোন্ যৌগের? সমীকরণ দাও।

অনুরূপ প্রশ্ন : একটি গ্যাস ভরতি পরীক্ষা নলের মুখের কাছে গাঢ় হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিডে সিক্ত একটি কাচ দণ্ড ধরলে সাদা ধোঁয়া সৃষ্টি হয়।পরীক্ষানলে কোন্ গ্যাস উপস্থিত? সমীকরণ দাও।

উত্তরা : অ্যামোনিয়া ও গ্যাসীয় হাইড্রোজেন ক্লোরাইডের বিক্রিয়ায় কঠিন অ্যামোনিয়াম ক্লোরাইড উৎপন্ন হয়।

NH3 (g) + HCl (g) = NH4Cl (s)

পরীক্ষাগার ও রাসায়নিক শিল্পে অজৈব রসায়ন

সংক্ষিপ্ত উত্তরভিত্তিক প্রশ্ন (SAQ)

1. কিপযন্ত্রে প্রস্তুত করা যায় এমন একটি গ্যাসের নাম করো। গ্যাসটি প্রস্তুতির (i) প্রারম্ভিক রাসায়নিকসমূহ, (ii) বিক্রিয়ার শর্ত, (iii) সমিত রাসায়নিক সমীকরণ এবং (iv) গ্যাসের সংগ্রহ লেখো। [MP-17]

উত্তর: কিপযন্ত্রে প্রস্তুত করা যায় এমন একটি গ্যাসের নাম হলো – হাইড্রোজেন সালফাইড (H2S)
(i) প্রারম্ভিক রাসায়নিকসমূহ- ফেরাস সালফাইড (FeS), লঘু সালফিউরিক অ্যাসিড (H2SO4)
(ii) বিক্রিয়ার শর্ত – কিপযন্ত্রে ফেরাস সালফাইডে (FeS) লঘু সালফিউরিক অ্যাসিড (H2SO4) যোগ করা। ফেরাস সালফাইড (FeS), লঘু সালফিউরিক অ্যাসিড (H2SO4) এর সংস্পর্শে এসে হাইড্রোজেন সালফাইড (H2S) গ্যাস উৎপন্ন করে
(iii) সমিত রাসায়নিক সমীকরণ –
লঘু H2SO4+FeS=H2S+FeSO4
(iv) উৎপন্ন হাইড্রোজেন সালফাইড (H2S) গ্যাস জলের নিম্ন অপসারণ দ্বারা সংগ্রহ করা হয়।

2. অ্যামোনিয়ার জলীয় দ্রবণে ফেনলপ্‌থ্যালিন যোগ করলে কী হবে? সাদা জামায় এই মিশ্রণটি ঢেলে দিলে তাৎক্ষণিক এবং কিছু সময় পরে পর্যবেক্ষণ কী হবে এবং কেন?

উত্তর : অ্যামোনিয়ার জলীয় দ্রবণে ফেনলপ্‌থ্যালিন যোগ করলে গোলাপী বর্ণ ধারণ করে। ফেনলপ্‌থ্যালিন সাধারণত ক্ষারের সাথে বিক্রিয়া করে গোলাপি বর্ণ ধারণ করে। সেই মিশ্রণে অ্যাসিড যুক্ত হলে মিশ্রণ বর্ণহীন হয়ে যায়। অ্যামোনিয়ার ফেনলপ্‌থ্যালিন যুক্ত জলীয় দ্রবণ সাদা জামায় ঢেলে দিলে গোলাপি বর্ণ ধারণ করে এবং পরে বায়ুতে অবস্থিত কার্বনিক অ্যাসিডের সাথে বিক্রিয়া করে বর্ণহীন হয়ে যায়।

3. অ্যামোনিয়া গ্যাসকে গাঢ় H2SO4 বা P2O5, CaCl2, CaO দ্বারা শুষ্ক করা যায় না কেন ?

উত্তর : ক্ষারীয় পদার্থ NH3, এর সঙ্গে H2SO4, P2O5 এবং CaCl2, বিক্রিয়া করে যথাক্রমে অ্যামোনিয়াম সালফেট, অ্যামোনিয়াম ফসফেট এবং যুত যৌগ CaCl2−8NH3 গঠন করে। কিন্তু CaO ক্ষারীয় হওয়ায় লবণ এটি ক্ষারীয় অ্যামোনিয়া (NH3) সঙ্গে বিক্রিয়া করে না। তাই NH3 কে CaO দ্বারা শুষ্ক করা হয়।

4. একটি ক্লোরাইড লবণ A এর সঙ্গে চুন মিশিয়ে উত্তপ্ত করলে বর্ণহীন ঝাঁজালো গন্ধবিশিষ্ট গ্যাস B উৎপন্ন হয়। B গ্যাসের সঙ্গে HCl বাষ্পের বিক্রিয়ায় পুনরায় A পাওয়া গেল। A ও B কে শনাক্ত করো ও সংশ্লিষ্ট বিক্রিয়াগুলি লেখো।

উত্তর : উপরক্ত বিক্রিয়ায় A হল – অ্যামোনিয়াম ক্লোরাইড (NH4Cl) এবং B হল – ঝাঁঝালো গ্যাস অ্যামনিয়া (NH3)
প্রথম বিক্রিয়াটি – 2NH4Cl+CaO→CaCl2+H2O+2NH3(g)
দ্বিতীয় বিক্রিয়াটি – NH3(g)+HCl(g)→NH4Cl (কঠিন)

5.100°C উষ্ণতায় উত্তপ্ত ক্যালশিয়াম  কার্বাইড এর ওপর দিয়ে নাইট্রোজেন গ্যাস চালনা করলে কী ঘটে সমিত রাসায়নিক  সমীকরণ সহ লেখো ।  MP 20

অথবা, নাইট্রোলিম কাকে বলে ? ব্যবহার লেখো |

Ans. 1100°C উষ্ণতায় উত্তপ্ত ক্যালশিয়াম কার্বাইডের ওপর দিয়ে নাইট্রোজেন গ্যাস চালনা করলে ক্যালশিয়াম সায়ানামাইড (CaCN2CaCN2) ও কার্বন উৎপন্ন হয়। ক্যালশিয়াম সায়ানামাইড ও কার্বনের ধূসর মিশ্রণকে নাইট্রোলিম বলে। জমিতে সার হিসাবে নাইট্রোলিম ব্যবহার হয় ৷

6. অ্যামোনিয়ার ব্যবহার লেখো।

উত্তর : অ্যামোনিয়ার ব্যবহার –
(1) অ্যামোনিয়াম সালফেট [(NH2)4SO4], অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট (NH4NO3), অ্যামোনিয়াম ফসফেট [(NH4)3PO4] প্রভৃতি অজৈব সার এবং জৈব সার ইউরিয়া [CO(NH)2] প্রস্তুত করতে অ্যামোনিয়া ব্যবহার করা হয়।
(2) সলভে পদ্ধতিতে সোডিয়াম কার্বনেট, অসওয়াল্ড পদ্ধতিতে নাইট্রিক অ্যাসিড প্রস্তুতিতে অ্যামোনিয়া ব্যবহার করা হয়।

7. কোল্ড স্টোরেজ কারখানা থেকে অ্যামোনিয়া গ্যাস নির্গত হওয়ার দুটি প্রতিকার ব্যবস্থা লেখো।

উত্তর : অ্যামোনিয়া আমাদের চোখের পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকর। তা ছাড়া নিশ্বাসের সঙ্গে অতিরিক্ত অ্যামোনিয়া ফুসফুসে প্রবেশ করলে মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ে। এজন্য কারখানা বা অ্যামোনিয়া ট্যাংক থেকে যদি হঠাৎ অ্যামোনিয়া গ্যাস বেরোতে থাকে তবে ফাঁকা জায়গায় যেখানে অ্যামোনিয়ার গন্ধ আসছে না সেখানে চলে যেতে হবে। অনবরত চোখে মুখে জলের ঝাপটা দেওয়া উচিত। জলে ভেজানো রুমাল নাকে চেপে রাখা দরকার। যেহেতু অ্যামোনিয়া জলে অত্যন্ত দ্রাব্য সেজন্য এরকম প্রাথমিক সতর্কতা অবলম্বনে ক্ষতির পরিমাণ কম হয়।

8. NH4Cl কে শুষ্ক কলিচুনসহ উত্তপ্ত করলে কী ঘটবে?

উত্তর : NH4Cl কে শুষ্ক কলিচুনসহ (CaO) উত্তপ্ত করলে অ্যামোনিয়া (NH3) গ্যাস নির্গত হয়। এছাড়া অ্যামোনিয়ার সঙ্গে ক্যালশিয়াম ক্লোরাইড (CaCl2) ও জল উৎপন্ন হয়। বিক্রিয়ার সমীকরণটি হল- 2NH4Cl+CaO→CaCl2+H2O+2NH3

9. পরীক্ষাগারে প্রস্তুত H2S গ্যাস থেকে কীভাবে অ্যাসিড বাষ্প ও জলীয় বাষ্প দূর করবে?

উত্তর : পরীক্ষাগারে প্রস্তুত উলফ বোতল থেকে নির্গত H2S গ্যাসকে সোডিয়াম হাইড্রোজেন সালফাইডের (NaHS) সম্পৃক্ত দ্রবণের মধ্য দিয়ে চালনা করে অ্যাসিড বাষ্প মুক্ত করা হয়। এরপর ফসফরাস পেন্টাক্সাইড (P2O5) পূর্ণ একটি U-নলের মধ্যে চালনা করে জলীয় বাষ্প মুক্ত করা হয়।

10. সিলভার নাইট্রেটের জলীয় দ্রবণে H2S গ্যাস চালনা করা হলে কী ঘটে সমীকরণসহ লেখো।

উত্তর : সিলভার নাইট্রেটের জলীয় দ্রবণে H2S গ্যাস চালনা করা হলে বিক্রিয়াজাত বস্তু হিসাবে কালো বর্ণের সিলভার সালফাইড (Ag2S) উৎপন্ন হয়। বিক্রিয়ার সমীকরণটি হল- 2AgNO3+H2S→Ag2S↓+2HNO3.

11. জলীয় কপার সালফেটের দ্রবনের মধ্যে H2S গ্যাস চালনা করলে কী ঘটে শমিত রাসায়নিক সমীকরণসহ লেখো। [MP-18]
উঃ- জলীয় কপার সালফেটের দ্রবনের মধ্যে H2S গ্যাস চালনা করলে কালো রঙের কিউপ্রিক সালফাইড অধঃক্ষিপ্ত হয়।
CuSO4 + H2S = CuS + H2SO4

12. উত্তপ্ত সোডিয়ামের ওপর অ্যামোনিয়া গ্যাস চালনা করা হলে, কী ঘটে সমীকরণ সহ লেখো।
উঃ- উত্তপ্ত সোডিয়ামের ওপর অ্যামোনিয়া গ্যাস চালনা করলে মোমের মতো সাদা কঠিন সোডামাইড এবং হাইড্রোজেন গ্যাস উৎপন্ন হয়।
2Na + 2NH3 = 2NaNH2 + H2

13. অ্যামোনিয়া গ্যাসকে গাড় H2SO4দ্বারা শুষ্ক করা হয় না কেন ?
উঃ- অ্যামোনিয়া ক্ষারকীয় গ্যাস। ঘন H2SO4 অ্যাসিড আম্লিক জলশোষক পদার্থ। উভয়ের মধ্যে বিক্রিয়ায় অ্যামোনিয়াম সালফেট লবন উৎপন্ন হয়। তাই অ্যামোনিয়া শুষ্ক করতে ঘন H2SO4 অ্যাসিড ব্যবহার করা হয় না।
2NH3 + H2SO4 = (NH4)2SO4

14. পরীক্ষাগারে N2 প্রস্তুতির রাসায়নিক উপকরণ ও বিক্রিয়ার শমিত সমীকরণ দাও।
উঃ- রাসায়নিক উপকরণ- সোডিয়াম নাইট্রাইট (NaNO2) এবং অ্যামোনিয়াম ক্লোরাইড (NH4Cl) ।
বিক্রিয়ার শমিত সমীকরণ-
NaNO2 + NH4Cl = NH4NO2 + NaCl ;
NH4NO2 = N2 + 2H2O

15. অ্যামোনিয়া গ্যাস বিজারণধর্মী প্রমান করো।
উঃ- অ্যামোনিয়া কিউপ্রিক অক্সাইডকে কপারে বিজারিত করে এবং নিজে নাইট্রোজেনে জারিত হয় ।
3CuO + 2NH3 = 3Cu + N2 + 3H2O

16. হেবার পদ্ধতিতে অ্যামোনিয়ার শিল্পোৎপাদনের শর্তাবলি ও বিক্রিয়ার শমিত সমীকরণ লেখো। [MP-18]

উঃ- শর্তাবলি:-
অ্যামোনিয়াম ক্লোরাইড এবং শুষ্ক কলিচুন 1:3 ভরের অনুপাতে ভালোভাবে মেশানো দরকার। মিশ্রণটি শক্ত কাচের পরীক্ষা নলে বা গোলতল ফ্লাক্সে নিয়ে ধীরে ধীরে খুব সাবধানে উত্তপ্ত করা দরকার।
শমিত সমীকরণ:-
Ca(OH)2 + 2NH4Cl = CaCl2 + 2NH3+ 2H2O

17. শর্তাবলি ও বিক্রিয়ার শমিত সমীকরণসহ ইউরিয়াকে কীভাবে শিল্পোৎপাদনের করা হয় লেখো। [MP-19]

উঃ– শর্তাবলি:- অতিরিক্ত পরিমান নির্জল তরল অ্যামোনিয়া ও তরল কার্বন ডাইঅক্সাইড 150 গুণ বায়ুমণ্ডলীয় চাপে, 200⁰C তাপমাত্রায় উত্তপ্ত করে ইউরিয়া প্রস্তুত করা হয়।
বিক্রিয়ার শমিত সমীকরণ:-
প্রথম ধাপ- 2NH3 + CO2 = NH2COONH4
দ্বিতীয় ধাপ- NH2COONH4 = NH2-CO-NH2+ H2O

18.লাইকার অ্যামোনিয়ার বোতল খোলার আগে ঠাণ্ডা করা প্রয়োজন কেন ?
উঃ- অ্যামোনিয়ার সম্পৃক্ত জলীয় দ্রবণকে লাইকার অ্যামোনিয়ার বলে । উষ্ণতা বৃদ্ধি পেলে জলের মধ্যে অ্যামোনিয়ার দ্রাব্যতা কমে যায়। লাইকার অ্যামোনিয়ার বোতল খোলার সময় উষ্ণতা বেশি হলে দ্রবন থেকে অতিরিক্ত অ্যামোনিয়া বেরিয়ে এসে দ্রবনের উপর সঞ্চিত থাকে। বোতলের ছিপি খুললে এই গ্যাস সজোরে বেরিয়ে আসে। ক্ষার ধর্মী এই গ্যাস চোখের পক্ষে মারাত্মক ক্ষতিকর । শ্বাসনালীর ভেতর এই গ্যাস প্রবেশ করলে শ্লৈষ্মিক – ঝিল্লি আক্রান্ত হয়। এর জন্য লাইকার অ্যামোনিয়ার বোতল খোলার আগে ঠাণ্ডা করা প্রয়োজন ।

19. অ্যামোনিয়াম ক্লোরাইডকে শুষ্ক কলিচুন সহ উত্তপ্ত করলে কী ঘটে সমীকরণ সহ লেখো। [MP-20]
উঃ- পরীক্ষাগারে অ্যামোনিয়াম ক্লোরাইডর সাথে শুষ্ক কলিচুনের মিশ্রণ উত্তপ্ত করলে ক্যালশিয়াম ক্লোরাইড, অ্যামোনিয়া ও জলীয় বাস্প উৎপন্ন হয়।
Ca(OH)2 + 2NH4Cl = CaCl2 + 2NH3+ H2O

20. অ্যামোনিয়াকে বায়ুর অক্সিজেন দ্বারা জারণ ঘটিয়ে কীভাবে নাইট্রিক অক্সাইড উৎপাদন করা হয় অনুঘটকের নাম ও শর্ত লেখো। বিক্রিয়ার শমিত সমীকরণ লেখো। [MP-20]
উঃ- অ্যামোনিয়া ও অতিরিক্ত বায়ুর মিশ্রণ (1 : 7.5 আয়তন অনুপাতে) 750⁰C – 900⁰C উষ্ণতায় প্ল্যাটিনাম-রোডিয়াম তারজালি অনুঘটকের ভেতর দিয়ে পাঠালে অ্যামোনিয়া নাইট্রিক অক্সাইডে জারিত হয়।
4NH3 + 5O2 = 4NO + 6H2O

21. লেড নাইট্রেটের জলীয় দ্রবনে H2S গ্যাস পাঠালে কী ঘটে সমীকরণ সহ লেখো।
উঃ- লেড নাইট্রটের জলীয় দ্রবনে H2S গ্যাস চালনা করলে সিলভার সালফাইড (PbS) এর কালো রঙের অধঃক্ষেপ পড়ে এবং নাইট্রিক অ্যাসিড উৎপন্ন হয়।
Pb(NO3)2 + H2S = PbS + 2HNO3

22. সালফার থেকে শুরু করে স্পর্শ পদ্ধতিতে সালফিউরিক অ্যাসিড প্রস্তুতির শর্তসহ সমীকরণগুলি লেখো।

অথবা, স্পর্শ পদ্ধতিতে SO2 থেকে SO3-এর প্রস্তুতির শর্তসহ বিক্রিয়ার সমিত সমীকরণ দাও। উৎপন্ন SO2, থেকে কীভাবে সালফিউরিক অ্যাসিড প্রস্তুত করা হয়? [MP 2017]

উত্তর : [i] আয়রন পাইরাইটিস (FeS2) অথবা নিঃশেষিত আয়রন অক্সাইড (Fe2S3) কিংবা সালফারকে অতিরিক্ত বায়ুর সঙ্গে পোড়ালে সালফার ডাইঅক্সাইড (SO2) গ্যাস উৎপন্ন হয় ।

4FeS2 + 11O2 = 2Fe2O3 + 8SO2 ↑ S + O2 = SO2

[ii] উৎপন্ন সালফার ডাইঅক্সাইড (SO2) কে বায়ুর সঙ্গে মিশিয়ে 450°C উষ্ণতায় উত্তপ্ত প্ল্যাটিনাম অ্যাসবেসটস অথবা ভ্যানডিয়াম পেন্টক্সাইডের (অনুঘটক) ওপর দিয়ে চালনা করলে সালফার ডাইঅক্সাইড বায়ুর O2 দ্বারা জারিত হয়ে সালফার ট্রাইঅক্সাইড (SO3) উৎপন্ন করে । বিক্রিয়াটি উভমুখী এবং সম্মুখ বিক্রিয়াটি তাপ উৎপাদক । এই বিক্রিয়ায় প্ল্যাটিনাম অ্যাসবেসটস অথবা ভ্যানডিয়াম পেন্টক্সাইড অনুঘটকের কাজ করে । বর্তমানে V2O5 অনুঘটক রূপে বেশি ব্যবহৃত হয় কারণ এর দাম কম এবং সহজে আর্সেনিক ইত্যাদি অশুদ্ধি দ্বারা নষ্ট হয় না । V2O5 বা, Pt (অনুঘটক)
2SO2+O2⇌2SO3+heat(45000calorie)

[iii] এভাবে উৎপন্ন সালফার ট্রাইঅক্সাইড 98% গাঢ় H2SO4 দ্বারা শোষিত হলে ওলিয়াম বা ধুমায়মান সালফিউরিক অ্যাসিড উৎপন্ন হয় ।

SO3 + H2SO4 = H2S2O7 (ওলিয়াম)

[iv] ওলিয়ামের সঙ্গে পরিমাণমত জল মেশালে সালফিউরিক অ্যাসিড দ্রবণ উৎপন্ন হয় ।

H2S2O7 + H2O = 2H2SO4

23. অসওয়াল্ড পদ্ধতিতে অ্যামেনিয়া থেকে নাইট্রিক অ্যাসিড উৎপাদনের নীতি রাসায়নিক সমীকরণ সহ লেখো |

উত্তর : অ্যামোনিয়া গ্যাস থেকে নাইট্রিক অ্যাসিড উৎপাদন :

[i] অ্যামোনিয়া গ্যাসকে বায়ুর সঙ্গে মিশিয়ে মিশ্রণটিকে 700°C উষ্ণতায় উত্তপ্ত প্লাটিনাম তারজালির ওপর দ্রুত চালনা করা হয়, ফলে অ্যামোনিয়া গ্যাস বায়ুর অক্সিজেন (O2) দ্বারা জারিত হয়ে নাইট্রিক অক্সাইড উৎপন্ন করে । এখানে প্লাটিনাম তারজালি অনুঘটকের কাজ করে ।

4NH3 + 5O2 = 4NO + 6H2O

[ii] উৎপন্ন নাইট্রিক অক্সাইডের সঙ্গে বায়ু মেশালে নাইট্রিক অক্সাইড বায়ুর অক্সিজেন দ্বারা জারিত হয়ে নাইট্রোজেন ডাইঅক্সাইডে পরিণত হয় ।

2NO + O2 = 2NO2

[iii] এইভাবে উৎপন্ন নাইট্রোজেন ডাইঅক্সাইড (NO2) -এর সঙ্গে গরম জলের বিক্রিয়ায় নাইট্রিক অ্যাসিড উৎপন্ন হয় ।

3NO2 + H2O = 2HNO3 + NO ↑

Comments 1

Welcome Visitor

Rlearn Education
error: Content is protected !!